Latest News
মঙ্গলবার, ৩ অক্টোবর ২০২৩ ।। ১৮ই আশ্বিন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
Home / জাতীয় / উন্নয়নের ধারা অব্যহত থাকলে ২০৪১ সালের আগেই বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রের মর্যাদা পাবে : ঝালকাঠিতে শিল্পমন্ত্রী

উন্নয়নের ধারা অব্যহত থাকলে ২০৪১ সালের আগেই বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রের মর্যাদা পাবে : ঝালকাঠিতে শিল্পমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার :
শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, শেখ হাসিনার যেগ্য নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে। উন্নয়নের ধারা অব্যহত থাকলে ২০৪১ সালের আগেই বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রের মর্যাদা পাবে। আজ শনিবার সকাল ১১টায় ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
শিল্পমন্ত্রী বলেন, একটি লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্বাধীনতা চেয়েছিলেন, সেটি হলো বিশ্বের বুকে বাঙালি জাতি মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করবে। বাঙালি জাতি বিভিন্ন জাতি দ্বারা নির্যাতিত, নিপিড়িত ও শোষিত হয়েছিল; সেই শোষণের জাঁতাকল থেকে মুক্তি পাবে। দেশ স্বাধীনের পরে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতির স্বপ্নকে হত্যা করা হয়েছিল। এর পরে যারা দেশ পরিচালনা করেছিলেন, তারা জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু কন্য শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পরে বাংলাদেশ নতুন করে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। আজ আমরা সল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছি।
শেখ হাসিনা বেঁচে আছেন বলেই উন্নয়ন হচ্ছে দাবি করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, যড়যন্ত্রকারীরা এখনো থেমে নেই, তারা শেখ হাসিনাকে ১৯ বার প্রাণ নাশের চেষ্টা করেছে। কিন্তু আল্লাহর রহমতে তিনি বেঁচে আছেন, তিনি বেঁচে আছেন বলেই আজ বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল। আগামীতে আমরা আরো এগিয়ে যেতে চাই। তাই এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হলে নৌকায় ভোট দিয়ে প্রমান করতে হবে, আপনারা উন্নয়ন চান।
জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হকের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার মো. জোবায়েদুর রহমান। এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সরদার মো. শাহ আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির, পৌর মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুলতান হোসেন খান।


এদিকে বাংলাদেশ সল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার গৌরবে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বর থেকে শোভাযাত্রা বের হয়ে শহর ঘুরে পৌর মিনিপার্কে গিয়ে শেষ হয়। শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। এতে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন। জেলা প্রশাসন এসব অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।