Latest News
শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪ ।। ১৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Home / জাতীয় / তরুণীর ধর্ষণ মামলা : রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ষড়যন্ত্র দাবি কাঁঠালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের

তরুণীর ধর্ষণ মামলা : রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ষড়যন্ত্র দাবি কাঁঠালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের

স্টাফ রিপোর্টার :
ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমাদুল হক মনিরের নামে দায়ের করা ধর্ষণ মামলাটি রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ষড়যন্ত্র বলে দাবি করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে কাঁঠালিয়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন। মিথ্যা নাটক সাজিয়ে তাঁর সম্মানহানি ও হয়রানি করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।
লিখিত বক্তব্যে এমাদুল হক মনির দাবি করেন, তাঁর বাবা অ্যাডভোকেট ফজলুল হক ছিলেন আওয়ামী লীগের একজন ত্যাগী ও নিবেদিত প্রাণ। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তাঁর ছেলে হিসেবে দল থেকে মনোনয়ন দিলে জনগণের ভোটে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচত হন তিনি। এর পর থেকে একের পর এক ষড়যন্ত্র শুরু করে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা। কোন ভাবেই যখন তারা সফল হচ্ছিল না, তখন একটি মেয়েকে দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে বরিশাল আদালতে তাঁর নামে মামলা করা হয়। মামলায় বলা হয়েছে, ২০১৭ সালে মেয়েটি এইচএসসি পাস করে তাঁর কাছে চাকরির জন্য আসে। অথচ মেয়েটি আমুয়া শহীদ রাজা ডিগ্রি কলেজ থেকে ২০১৯ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে অকৃতকার্য হয়। মেয়েটি সর্বশেষ গত ১ আগস্ট তাকে ধর্ষণের অভিযোগ আনে। তখন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঢাকায় তাঁর শ্বশুর বাড়িতে ছিলেন। ঈদ উদযাপনের জন্য তিনি ২০ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত ঢাকায় ছিলেন। এতেই প্রমাণিত হয় মামলার অভিযোগটি সম্পূর্ণ সাজানো, মিথ্যা ও বানোয়াট।


এমাদুল হক মনির বলেন, আমি এ বছরের ২৪ জানুয়ারি বিয়ে করেছি। তখন মেয়েটি কেন এ অভিযোগ করলো না! মেয়েটি আমার সঙ্গে সালিশ বৈঠকের সময় তোলা একটি ছবি ফেসবুকে ছেড়ে সম্মানহানি করেছে। আমার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার নষ্ট করার জন্য প্রতিপক্ষের কাছ থেকে প্রভাবিত হয়ে এসব করছে। আমি ওই মেয়েটিকে চিনিও না। পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি, মেয়েটির বাবা একজন চিহ্নিত ডাকাত। তিনি ডাকাতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। এ ধরণের ব্যাক্তির মেয়েকে দিয়ে যেকোন কিছু করানো সম্ভব বলেও তিনি সংবাদ সম্মেলনে জানান। এসব ষড়যন্ত্রকারীদের আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি জানান চেয়ারম্যান এমাদুল হক মনির। সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক তরুন কর্মকার, আওয়ামী লীগ নেতা খসরু নোমান, কাঁঠালিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান উজির সিকদার, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান বদিউজ্জামান বদু ও ফাতেমা খানমসহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে আমুয়া বাজারে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে বিভিন্ন সংগঠন। উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ ও হিন্দু-বৈদ্য-খ্রিস্ট্রান ঐক্য পরিষদ যৌথভাবে এ মানববন্ধনের আয়োজন করে। মানববন্ধনে বক্তারা ষড়যন্ত্রমূলক মামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানান। অন্যথায় কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দেওয়া হয় মানববন্ধন থেকে।
বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে ২৫ আগস্ট দুপুরে কাঁঠালিয়ার আমুয়া ইউনিয়ের ২২ বছরের এক তরুণী বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে এ মামলাটি দায়ের করেন। মামলাটি তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয় বরিশাল কোতয়ালি থানার ওসিকে।

জনতার কণ্ঠ 24 সংবাদ

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ঝালকাঠিতে আহ্বায়ক কমিটি গঠন

স্টাফ রিপোর্টার : একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ঝালকাঠি জেলা শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হয়েছে। …