Latest News
শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪ ।। ১৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Home / নারী ও শিশু / নারী ইউপি সদস্যকে চুলের মুঠি ধরে মারলেন চেয়ারম্যান

নারী ইউপি সদস্যকে চুলের মুঠি ধরে মারলেন চেয়ারম্যান

মো. মিজানুর রহমান টিটু :
ঝালকাঠির রাজাপুরে এক নারী ইউপি সদস্যকে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন মজিবর মৃধা বিরুদ্ধে। এমনকি তাঁর সঙ্গে অশালীন আচরণ করে নানা ধরণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে ঝালকাঠি প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন রাজাপুর সদর ইউনিয়নের সংরক্ষিত ইউপি সদস্য ও উপজেলা মহিলা লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুন নাহার নিরু। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান তিনি।
লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করেন, ইউনিয়নের বিধবা ও বয়স্ক ভাতার তালিকা জমা দেয়ার জন্য গত ১৮ এপ্রিল মেডিক্যাল মোড়ে চেয়ারম্যানের রড সিমেন্টের দোকানে যায় নুরুন নাহার নিরু। চেয়ারম্যানের কাছে বিধবা ও বয়স্ক ভাতার তালিকা জমা দেন। তালিকা দেখে চেয়ারম্যান বলেন, এদের নাম দেওয়া যাবে না। আমি যে তালিকা দেবো, সেটাই চূড়ান্ত করা হবে। এসময় তিনি চেয়ারম্যানকে বলেন, আমার তালিকা আমি দেবো, আপনারটা আপনি দেবেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান তাকে অশালীন ভাষায় গালাগাল করেন। চুলের মুঠি ধরে তাকে মারধর করে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ইউপি সদস্য মিজান মাঝি ও সংরক্ষিত সদস্য নাজমা ইয়াসমিন মুন্নি চেয়ারম্যানের হাত থেকে তাকে উদ্ধার করে। বিষয়টি তিনি ঝালকাঠি-১ আসনের সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুণ, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দকে জানান। নির্যাতিত এ নারী ইউপি সদস্য এ ঘটনার বিচারের দাবি জানিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে তাঁর সঙ্গে সংরক্ষিত আসনের মহিলা ইউপি সদস্য নাজমা ইয়াসমিন মুন্নি উপস্থিত ছিলেন।
এব্যাপারে রাজাপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন মজিবর মৃধা বলেন, আমি তাকে মারধর করিনি। তার কাছে আমি টাকা পাই, সেই টাকা এখনো সে পরিশোধ করেনি। নুরুন্নাহারের বিরুদ্ধে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড করে দেওয়ার জন্য টাকা নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। আমরা প্রকৃত অসহায় মানুষকে এই কার্ড দিতে চাই।